সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২২ অপরাহ্ন২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

২৯শে শাবান, ১৪৪২ হিজরি

ঢাকাকে ঢেকে ফেলেছে করোনা

ঢাকাকে ঢেকে ফেলেছে করোনা

জাগো ডেস্কঃ  আক্রান্তের দিক দিয়ে ঢাকাকে গিলছে করোনা। এরপরই থাবা বসিয়েছে নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের দিকে। অথচ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, সবাই ঘরে থাকলে এই এপ্রিলেই করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে জয়ী হওয়া যাবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অঙ্কের এমন ফর্মুলা আর সারাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেয়ার প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির কতটুকু মিল রয়েছে তা নিয়ে সব মহলে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। স্বাস্থ্য ও রোগতত্ত্ববিদদের অনেকের মতে, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এ ধরনের সহজ হিসাব করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সুষ্ঠু চিকিৎসাসেবা প্রাপ্তিকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। তারা বলছেন, অঙ্কের ফর্মুলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সফল হলেও বাস্তবে ঢাহা ফেল করেছেন।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার ২ হাজার ১৯টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৩৪১ জন, মারা গেছেন ১০ জন। আর গতকাল শুক্রবার ২ হাজার ১৯০টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ২৬৬ জন, মারা গেছেন ১৫ জন। শনাক্ত রোগী সংখ্যা কমে এলেও মৃতের সংখ্যা বেড়েছে। মৃতের সংখ্যা বাড়ার কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, করোনা ছাড়াও তাদের শরীরে অন্য উপসর্গ ছিল।

তবে করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে আরো বেশি টেস্ট করার দিকে জোর দিচ্ছে সরকার। তীব্র শ্বাসকষ্ট বা করোনা সংক্রান্ত অন্য লক্ষণ দেখা দিলে এখন আর দেরি না করে সবারই পরীক্ষা করা হচ্ছে। সরকার এও বলছে, করোনা আক্রান্ত ৮০ ভাগ মানুষেরই কোনো ওষুধের দরকার পড়ে না। আর কারো ওষুধ দরকারহলে, তা নির্ভর করবে ওই ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার ওপর। তবে কারো শ্বাসকষ্ট বা নিউমোনিয়া থাকলে তার চিকিৎসা দিতে হবে। খুব কম সংখ্যক মানুষের ক্ষেত্রে অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

এই যখন অবস্থা তখনো অনেক রোগীই বলছেন, টেস্ট এখনো দ্রুত হচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বহুবার ফোন করার পরই টেস্ট করার জন্য নমুনা দিতে পারছেন। এতে রোগীর মনোবল ভেঙে যাচ্ছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী যতই বলছেন, চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তা উপকরণ দেয়া হয়েছে; ততই চিকিৎসকদের আক্রান্তের পরিমাণ বাড়ছে। এ পর্যন্ত ৯০ জন চিকিৎসক ও ৫৪ জন নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যু, ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জন : করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ২৬৬ জন। গত কয়েকদিন ধরেই মৃত্যুর নতুন নতুন রেকর্ড হচ্ছে। সবমিলিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃতের সংখ্যা ৭৫ জন। গতকাল শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এসব তথ্য জানান। গেল ২৪ ঘণ্টায় মোট ২ হাজার ১৯০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এর মধ্যে ২৬৬ জনের মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ৮৩৮ জনে। এর বিপরীতে নতুন করে ৯ জন সুস্থ হয়ে ওঠায় মোট সুস্থের সংখ্যা ৫৮ জন।

আক্রান্তের ৪৬ শতাংশই ঢাকায় : আক্রান্তদের মধ্যে ৪৬ শতাংশই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা। এরপর ২০ শতাংশ নারায়ণগঞ্জের। এছাড়া গাজীপুর, কেরানীগঞ্জ, চট্টগ্রাম ও মুন্সীগঞ্জেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। রাজধানীর মধ্যে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা মিরপুরে সবচেয়ে বেশি ১১ শতাংশ। করোনা ভাইরাস প্রথমে টোলারবাগে শনাক্ত হলেও এখন তা মিরপুরের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। এরপর মোহাম্মদপুর, ওয়ারী ও যাত্রাবাড়ীতে ৪ শতাংশ করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া ধানমন্ডিতে ৩ শতাংশ রোগী পাওয়া গেছে।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
© Daily Jago কর্তৃক সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT